4 Amazing Android Apps That Will Makes You More Smart and Productive (Part 1)

হ্যাল্লো জনগণ কি অবস্থা সবার? আশা করি সবাই ভাল আছেন? আমিও ঠিক ঠাক। তো আজ আমরা আমাদের Android ফোনের এমন কিছু এপ্লিকেশন নিয়ে আলোচনা করবো যেগুলা ব্যাবহারে আপনি হয়ে উঠবেন আরো স্মার্ট এবং আপনার ফোন কে আরো কুল করে কাস্টমাইজ করতে পারবেন। তেমনি 4টি Apps এর কথা হবে আজ। তো বেশি না বকে আসুন দেখে নেওয়া যাক

গুগল প্লে স্টোরে কিন্তু কোটি কোটি মিলিয়ন মিলিয়ন অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে।  যার ভিতর মারাত্মক আসক্তিকর গেমের মত অ্যাপস থেকে শুরু করে গুগোল কিংবা ফেইসবুক  ইত্যাদির মত প্রয়োজনীয় অ্যাপ্লিকেশনও রয়েছে। প্লে স্টোরে এমন কিছু অ্যাপ্লিকেশন রয়েছে যেগুলো ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনার এন্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারে  যোগ হতে পারে পারে একটি অন্যরকম মাত্রা।  আপনি চাইলে আপনার ফোনকে আপনার ইচ্ছামত কাস্টমাইজ করতে পারবেন ইচ্ছা মত সাজাতে পারবেন, এডিট করতে পারবেনআইকন চেঞ্জ করতে পারবেন।  মজা হয় না ব্যাপারটা?

তো আমরা আমাদের ব্লগে এমন কিছু অ্যাপ্লিকেশন নিয়ে আলোচনা করব যে কোন ব্যবহারে আপনি আরো বেশি প্রডাক্টিভ হতে পারবেন।  আরো বেশি স্মার্ট হতে পারবেন।  এবং আপনার অ্যান্ড্রয়েড ফোনকে নিজের মত করে কাস্টমাইজ করতে পারবেন।  আমরা সবাই   জানিআমরা  চাইলেই আমরা সবকিছু চেঞ্জ করতে পারি না।  তবুও কিছু কিছু অ্যাপস ব্যবহারের মাধ্যমে আমাদের দৈনন্দিন জীবনে আরেকটুখানি টুইস্ট করা যেতে পারে।

অনেক সময় আলাদা আলাদা ব্র্যান্ডের ফোনে আলাদা আলাদা কিছু ফিচার থেকে থাকে।  যেগুলো সবার সব ব্রান্ডের ফোনে একই রকম নাও হতে পারে।  এই সমস্ত ফিচারগুলো  আপনি চাইলেই বিভিন্ন অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে ব্যবহার করতে পারবেন।  চলুন আজকের পোস্ট এর মাধ্যমে এমনই পাঁচটি দরকারি আর চমৎকার অ্যাপ্লিকেশন সম্পর্কে জেনে নেওয়া যাক - 

Part 2 Of This Post


1. Lynket Browser লিনকেট ব্রাউজারঃ


Lynket Browser apps


আজকে আমাদের লিস্টের এক নম্বরে আছে লিনকেট ব্রাউজার। ফেসবুক মেসেঞ্জার তো আমরা সবাই ব্যবহার করি । আমরা জানি যে মেসেঞ্জার ব্যবহার করার সময়।  মেসেঞ্জার ব্যাকগ্রাউন্ডে চলাকালীন অবস্থায় কেউ কোনো টেক্সট আমাদের কাছে পাঠালে সঙ্গে সঙ্গে একটি চ্যাট হেড ওপেন হয়।  এবং আমরা চাইলেই সেই চ্যাট হেড এ ক্লিক করে ইনস্ট্যান্ট চ্যাটিং করতে পারি।  কেমন হয় যদি ব্রাউজার এর ক্ষেত্রে এমনটি  হত। 

 ব্রাউজারে অনেকগুলো  ট্যাব নিয়ে কাজ করা এটাতো স্বাভাবিক বিষয়।  এমন  মেসেঞ্জার চ্যাট হেডস  এর মত আইকন যদি ব্রাউজার থেকে থাকে তাহলে কিন্তু ব্যাপারটা অনেক মজা হবে তাই না? লিনকেট  ব্রাউজার ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনি এই সুবিধাটি পেতে পারেন। 


এছাড়া লিনকেট ব্রাউজারের একটি অন্যতম বৈশিষ্ট্য হচ্ছে।  এই ব্রাউজারের মাধ্যমে  যে কোন একটি ওয়েব পেজকে খুব সুন্দর ভাবে আর্টিকেল মোডে পড়া যায়। 


2. Popup Widget 3 (পপআপ উইজেট ৩)


Popup Widget 3 apps review

মাল্টিটাস্কিং কার না ভালো লাগে বলুনমাঝে মাঝে মনে হয় যদি চারটা হাত হত তাহলে মনে হয় মানুষ আরো বেশি প্রডাক্টিভ হত।  আমরা কিন্তু সবাই  মাল্টিটাস্কিংকরতে ভালোবাসি।  আর এজন্য আমরা আমাদের ফোনে অনেক উইজেট ব্যবহার করে থাকে।  তবে হ্যাঁআপনি যদি আপনার ব্যবহার করে অনেকগুলো এপ্লিকেশন ব্যবহার করেন একসঙ্গে।  তাহলে কিন্তু আপনার মোবাইলটি স্লো হয়ে যাবে।  কেননা প্রতিটি অ্যাপ্লিকেশন নির্দিষ্ট পরিমান  র‍্যাম রম ব্যাবহার করে।

তাই মাল্টিটাস্কিং এর সময় একটু খেয়াল রাখবেন।  যাতে করে আপনার ফোনের জন্য ওভারলোড না হয়ে যায়। পপআপ উইজেট ৩ ব্যবহারের মাধ্যমে  মাল্টিটাস্কিং আরেকটু গতি সঞ্চার করা সম্ভব।  আপনি চাইলে আপনার উইজেড গুলোকে আরও সুন্দরভাবে কাস্টমাইজ করতে পারেনি অ্যাপসের মাধ্যমে। আপনি আপনার প্রয়োজনীয় এপস গুলো ওপেন করে সেগুলো কে ছোট একটা আইকনের মধ্যে  রাখতে পারেন।  যাতে করে আপনি আপনার সব অ্যাপস গুলো খুব দ্রুত অ্যাক্সিস  নিতে পারেন।  এব্যাপারটা বেশ গোছানো হয় তাই না!


3. Notepin (নোটপিন)


Note Pin apps

আমরা আমাদের দৈনন্দিন কাজে বিভিন্ন সময়ে বিভিন্ন কিছু নোট করে  থাকি।  আর এই প্রযুক্তির যুগে নোট করার জন্য আমরা নিশ্চয়ই কোন অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করে থাকে।  তবে আপনি যে অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করেন না কেন।  নোট করার জন্য নোটপিন অ্যাপ্লিকেশনটি  একবার হলেও ব্যাবহার করে দেখবেন।

 

 অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করার মাধ্যমে আপনিআপনার যেকোনো নোটকে নোটিফিকেশন বারে পিন করে রাখতে পারবেন।  আর এর ফলে  আপনি যতবার নোটিফিকেশন প্যানেলে চেক করবেনততোবারই আপনার পিন করা নোট টি দেখতে পাবেন।  এবং আপনার প্রয়োজনীয় কাজের কথা মনে থাকবে।

 মজার ব্যাপার কি জানেননোটিফিকেশন প্যানেলে অল নোটিফিকেশন ক্লিয়ার করে দিলেওআপনি যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনার  নোট টি আনপিন  করবেন ততক্ষণ পর্যন্ত এটি আপনার নোটিফিকেশন প্যানেলে থাকবে।  


4. MacroDroid (ম্যাক্রোড্রয়েড)


MacDroid apps

ম্যাক্রো ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহারের মাধ্যমে আপনিঅনেক বেশি অ্যাডভান্স ইউজার হতে পারেন।  আপনি জাস্ট আপনার অ্যাপ্লিকেশনকে কমান্ড দিয়ে রাখবেন।  সে আপনার মত কাজ করবে।  ধরুন আপনি যখন গেম খেলেন তখন আপনার ফোনে ব্রাইটনেস বেশি দরকার হয়এবং আমি প্রতিদিনই গেমে ঢোকার পরে নিজে নিজে মানে ম্যানুয়ালি ব্রাইটনেস বাড়িয়ে নেন।  কেমন হয় যদি আপনার অ্যাপ্লিকেশন এ  ঢোকার সঙ্গে সঙ্গে অটোমেটিক ব্রাইটনেস বেড়ে যায়।  হ্যাঁ  অ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে  আপনি এগুলা অনায়াসে করতে পারবেন।

 ধরুন আপনি ঘুমানোর সময় প্রতিদিন রাতে ফোন সাইলেন্ট মোডে রাখেন।  কিন্তু প্রতিদিন তো আর মনে থাকে নাকেমন হয় যদি প্রতিদিন আপনার মোবাইলে অটোমেটিকলি ঘুমানোর সময় সাইলেন্ট হয়ে যায়।  অনেক মজা হবে তাই নাঅ্যাপ্লিকেশনের মাধ্যমে কিন্তু আপনি এটা করতে পারবেন। এই অ্যাপসের  সব ফিচার এখানে বর্ণনা করতে গেলে হয়তো লেখাটা অনেক বড় হয়ে যাবে। 

এটা অনেক সিম্পল। এপ্লিকেশনটি ইন্সটল করেআপনার প্রয়োজন মত  কনফিগারেশন সেটআপ করে রাখলেই হবে। এটি আপনার কমেন্ট মত কাজ করতে থাকবে। এছাড়াও আরও অনেক ফিচার আছে।  যেগুলো ব্যবহার করার সময় বুঝতে পারবেন।

Post a Comment (0)
Previous Post Next Post